করোনা আক্রান্ত স্বামীকে হাসপাতালে ভর্তি করানোর জন্য হন্যে হয়ে ঘুরলেন সংক্রমিত স্ত্রী, অবশেষে মৃত্যু

করোনা আক্রান্ত স্বামীকে হাসপাতালে ভর্তি করানোর জন্য হন্যে হয়ে ঘুরলেন সংক্রমিত স্ত্রী, অবশেষে মৃত্যু
করোনা আক্রান্ত স্বামীকে হাসপাতালে ভর্তি করানোর জন্য হন্যে হয়ে ঘুরলেন সংক্রমিত স্ত্রী, অবশেষে মৃত্যু/প্রতীকী ছবি

করোনা শুধু শারীরিক ভাবে থাবা বসাচ্ছে তাই নয়, এই ভাইরাস মানসিক ভাবেও বিপর্যস্ত করে দিচ্ছে জনজীবনকে। করোনার কারণেই ফের একবার অমানবিক পরিস্থিতির শিকার হল বোলপুর। করোনা আক্রান্ত স্বামীকে বাঁচাতে হন্যে হয়ে শহরের এ প্রান্ত থেকে ওই প্রান্ত ঘুরলেন করোনা আক্রান্ত স্ত্রী। তাও হল না শেষ রক্ষা।

বোলপুরের নতুন পুকুরের বাসিন্দা দেবাশীষ দত্ত। বাড়িতে সদস্য বলতে তার স্ত্রী ও দুই ছেলে মেয়ে। গত বছর লক ডাউন শুরু হতেই ব্যবসায় মন্দা শুরু হয় দেবাশীষ বাবুর। কোনও রকমে চলছিল অভাবের সংসার।

এরমধ্যেই করোনা আক্রান্ত হয়ে পড়েন দেবাশীষ দত্ত। এবার নতুন করে শুরু হয় সমস্যা। দেখা যায় তাঁর স্ত্রী আবীরা দেবীও সংক্রমিত হয়েছেন। এরমধ্যেই শুক্রবার রাতে হটাৎ করেই শ্বাসকষ্ট শুরু হয় দেবাশীষ বাবুর। নিজের শেষ সম্বল টুকু নিয়ে স্বামীকে হাসপাতালে ভর্তি করার আশায় বেরিয়ে পড়েন তাঁর স্ত্রী। কিন্তু কোনও হাসপাতালই তাঁকে ভর্তি নিতে চায়নি বলে অভিযোগ।

এরপর বাড়িতে নিয়ে এলে সেখানেই মৃত্যু হয় দেবাশীষ দত্তের। কিন্তু এখানেই শেষ নয়। বরং শুরু হয় আরও এক লড়াইয়ের। বাড়িতে ৯ ঘণ্টা পরে থাকে দেহ। মৃতদেহ নিয়ে যাওয়ার জন্য বোলপুর পুরসভায় ফোন করলে সেখানকার ডোমরা ৯ হাজার টাকা দাবি করেন। ঘটনাস্থলে আসেন ৮ নম্বর ওয়ার্ডের বিদায়ী কাউন্সিলর ওমর শেখ। কিন্তু তাও পরিস্থিতি বদলায়না। এরপর তার এক আত্মীয় ওই টাকা দিতে রাজি হলে দেহ সৎকারের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। এখন আবীরা দেবী চান তাঁকে যেন কোনও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.