‘করোনা সংক্রমণ রোখার একমাত্র রাস্তা সম্পূর্ণ লকডাউন’, টুইট রাহুল গান্ধীর

‘করোনা সংক্রমণ রোখার একমাত্র রাস্তা সম্পূর্ণ লকডাউন’, টুইট রাহুল গান্ধীর
‘করোনা সংক্রমণ রোখার একমাত্র রাস্তা সম্পূর্ণ লকডাউন’, টুইট রাহুল গান্ধীর

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ করোনায় বিপর্যস্ত গোটা দেশ। দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা বড় সমস্যার মুখোমুখি। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন সাড়ে ৩ লক্ষ ৫৭ হাজার ২২৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৩,৪৪৯ জনের।

দেশের লাগামছাড়া এই করোনা সংক্রমণ রুখতে একমাত্র রাস্তা লকডাউন। এমনটাই মনে করছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। তাই এ প্রসঙ্গে কেন্দ্রের কাছে সেই আর্জি জানিয়ে, টুইট করলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। টুইট করে তিনি লিখেছেন, ‘ভারত সরকার এটা বুঝতে পারছেন না, করোনা সংক্রমণ রোখার একমাত্র রাস্তা সম্পূর্ণ লকডাউন।’ পাশাপাশি কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী ন্যূনতম আয় যোজনার মাধ্যমে লকডাউন কায়েম করার কথা জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য করোনার প্রথম ঢেউ যখন আছড়ে পড়েছিল, তখন দেশে সংক্রমণ রুখতে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু সেই অভিজ্ঞতা মোটেও ভাল ছিল না। দেশের আর্থিক পরিস্থিতি সংকটের মুখে পড়ে। পূর্ব পরিকল্পনা ছাড়া সরকারের এই সিদ্ধান্তে গণপরিবহন বন্ধ হয়ে যাওয়ায়, বহু পরিযায়ী শ্রমিক হাজার হাজার কিলোমিটার পায়ে হেঁটে নিজেদের বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেন। অনেক পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু হয়। দেশে এক জটিল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। অনেকেই নানা জায়গায় গিয়ে আটকে পড়েন। অনেকেই তাঁদের কাজ হারান। সেই সময় বিরোধীদের অনেকেই সরকারের এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছিলেন। পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না নিয়ে, লকডাউন করার অভিযোগ ওঠে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে।

আর এবারেও করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে ক্রমশ বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও। তবে, শুরু থেকেই কেন্দ্র সরকার বলে এসেছে যে, দেশে ফের লকডাউন হবে না। এটা একদম সর্বশেষ উপায় সংক্রমণ রোখার। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন জানিয়েছিলেন, এখন লকডাউন কায়েম করার কোনও পরিকল্পনা কেন্দ্রের নেই। পরে জাতির উদ্দেশে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কনটেইনমেন্ট জ়োনের কথা বললেও, লকডাউন কায়েম করার কোনও ইঙ্গিত দেননি। তবে, গোটা দেশজুড়ে করোনার বাড়বাড়ন্ত দেখে, বিশেষজ্ঞ এবং চিকিৎসকরা ভিন্ন মত পোষণ করছেন। করোনার এই সংক্রমণ রুখতে তাঁরা লকডাউনকেই সমর্থন করেছেন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত ২৪ ঘণ্টাতেই করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লক্ষ ৫৭ হাজার ২২৯ জন। এই সংখ্যা গতকাল ছিল ৩ লাখ ৬৮ হাজার ১৪৭। দেশে এই মুহূর্তে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২ কোটি পার করেছে। করোনায় আক্রান্তের মোট সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ২ লক্ষ ৮২ হাজার ৮৩৩ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৩ লাখ ২০ হাজার ২৮৯জন। গতকালের থেকে সুস্থতার হারও অনেকটাই বেশি। এ পর্যন্ত করোনায় মোট সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ৬৬ লক্ষ ১৩ হাজার ২৯২ জন। আর এখনও পর্যন্ত টিকাকারণ হয়েছে ১৫ কোটি ৮৯ লক্ষ ৩২ হাজার ৯২১ জনের।

তবে, বেড়েছে মৃত্যুর সংখ্যা। যা যথেষ্ট উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ দেশের দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যাকেও বাড়িয়ে দিয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে মৃত্যু হয়েছে ৩,৪৪৯ জনের। এ নিয়ে এপর্যন্ত করোনায় মৃত্যু হয়েছে ২ লক্ষ ২২ হাজার ৪০৮ জনের। সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৩৪ লক্ষ ৪৭ হাজার ১৩৩। আর এই সংখ্যাটাই ভয় দেখাচ্ছে। দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়ার মুখে। আর ঠিক এই পরিস্থিতিতেই রাহুল গান্ধী সম্পূর্ণ লকডাউন জারি করার পক্ষে সওয়াল করলেন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.