বিধানসভা নির্বাচনের ভুলের পুনরাবৃত্তি কোনমতেই নয়! গণনার আগেই কড়া বার্তা বঙ্গ বিজেপির

বিধানসভা নির্বাচনের ভুলের পুনরাবৃত্তি কোনমতেই নয়! গণনার আগেই কড়া বার্তা বঙ্গ বিজেপির
বিধানসভা নির্বাচনের ভুলের পুনরাবৃত্তি কোনমতেই নয়! গণনার আগেই কড়া বার্তা বঙ্গ বিজেপির/ ফাইল ছবি

আগামীকাল সামশেরগঞ্জ, জঙ্গিপুর ও ভবানীপুরের নির্বাচনের ফলপ্রকাশ। যদিও বাকি দুই কেন্দ্রের থেকেও রাজনৈতিক মহলের নজর ভবানীপুরের উপনির্বাচনের ফলের দিকে। কারণ এই কেন্দ্রের ফলের উপরেই নির্ভর করছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখ্যমন্ত্রী পদের স্থায়ী করণ। আর এদিকে গণনার আগের দিনই দলীয় কর্মীদের বড় নির্দেশ দিল বঙ্গ বিজেপি।

লিভার বিজেপির রাজ্য সদরদপ্তরে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকের ডাক দেওয়া হয়েছিল। স্তরের কর্মীদের পাশাপাশি ছিলেন বঙ্গ বিজেপির নেতৃত্বরাও। সেখানে আগামীকালের যাবতীয় দায়িত্ব বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে কর্মীদের। একাধিক বার্তা দেওয়ার পাশাপাশি ভোট গণনা শেষ না হলে কোন কর্মী যেন ভোট গণনা কেন্দ্র থেকে ছেড়ে বের না হয় সে বিষয়ে কড়া নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

দলীয় সূত্রে খবর, গণনার সময় কর্মীদের ভূমিকা কি হবে সেই নিয়ে সবিস্তারে প্রেক্ষাপট আলোচনা করা হয়েছে এদিন। ফল যদি আসা রূপ নাও হয় তাও যেন গণনা কেন্দ্র ছেড়ে কর্মীরা না বেরোন সে বিষয়ে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কারণ বিধানসভা নির্বাচনের সময় দেখা গিয়েছিল ফল নিজেদের দিকে না আসার কথা বুঝতে পেরেই গণনা কেন্দ্র ছেড়ে বেরিয়ে এসেছিলেন বহু কর্মীরা। আর সেই সময়ই ভোট গণনায় কারচুপি হয়েছে বলে দাবি করছে বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব। সেই একই ভুলের পুনরাবৃত্তি কোনমতেই করা যাবে না বলে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে শীর্ষ নেতৃত্বের তরফে।

পুজো মিটলেই ৩০ অক্টোবর বাকি চার আসনের উপনির্বাচন রয়েছে। তাই সেই সমস্ত কেন্দ্রে কারা প্রার্থী হবেন সেই নিয়ে ইতিমধ্যে আবেদন জমা পড়েছে গেরুয়া শিবিরের সদরদপ্তরে। সেই নাম ঝাড়াই-বাছাই পড়ে দিল্লিতে পাঠানোর তোড়জোড় শুরু করেছে বঙ্গ বিজেপি। মধ্যে প্রতি কেন্দ্র থেকে চার-পাঁচজন মিলিয়ে মোট কুড়িটি নাম জমা পড়েছে বলে জানিয়েছেন দিলীপ ঘোষ। সে ক্ষেত্রে প্রতি কেন্দ্র থেকে তিনজনের নাম বাছাই করে দিল্লীতে পাঠানো হবে বলে জানা গিয়েছে। তারপরে দিল্লির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব চূড়ান্ত করবেন চার জন প্রার্থীর নাম।