সোমবার, ১৫ আগস্ট, ২০২২

অন্তর্ঘাত নয়, এই কারণে ভেঙে পড়েছিল বিপিন রাওয়াতের কপ্টার! জানা গেল প্রাথমিক তদন্তে

১১:২৪ এএম, জানুয়ারি ১৫, ২০২২

অন্তর্ঘাত নয়, এই কারণে ভেঙে পড়েছিল বিপিন রাওয়াতের কপ্টার! জানা গেল প্রাথমিক তদন্তে

গত ৮ ডিসেম্বর, তামিলনাড়ুর কুন্নুর জেলার চা-বাগান এলাকায় দুর্ঘটনার মুখে পড়ে সিডিএস জেনারেল বিপিন রাওয়াতের কপ্টার। দূর্ঘটনায় রাওয়াত, স্ত্রী মধুলিকা সহ কপ্টারে থাকা আরও ১১ জনের মৃত্যু হয়। গ্রুপ ক্যাপ্টেন বরুণ সিং, দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে গেলেও কয়েকদিন পরেই গুরুতরভাবে পুড়ে যাওয়ার কারণে মারা যান। কেন দুর্ঘটনার কবলে পড়েছিল বিপিন রাওয়াতের কপ্টার, তার তদন্তে তিন বাহিনীর উদ্যোগে তৈরি হয় বিশেষ তদন্তকারী দল। এবার প্রাথমিক তদন্তে উঠে এল দুর্ঘটনার সম্ভাব্য কারণ।

ফ্লাইট ডেটা রেকর্ডার ও ককপিট ভয়েস রেকর্ডারের পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ও প্রতক্ষ্যদর্শীদের বয়ানের ভিত্তিতে প্রাথমিক তদন্তের পর তিন সদস্যের দল জানিয়েছে, কোনও অন্তর্ঘাত নয়, মূলত হঠাৎ করে খারাপ হয়ে যাওয়া আবহাওয়া ও কপ্টার চালকের কিছু ভুল সিদ্ধান্তের কারণেই দুর্ঘটনার মুখে পড়েছিল বিমানটি। ফ্লাইট ডেটা রেকর্ডার বিশ্লেষণ করার পর তদন্তকারীরা জেনেছেন, "উপত্যকার আবহাওয়ার অবস্থায় অপ্রত্যাশিত পরিবর্তনের কারণে মেঘের মধ্যে প্রবেশের ফলে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। এর ফলে পাইলটের স্থানিক বিভ্রান্তির ফলে একটি নিয়ন্ত্রিত ফ্লাইট ইনটু টেরেইন (CFIT) ঘটে"। অর্থাৎ হঠাৎ করে মেঘ ও কুয়াশার মধ্যে ঢুকে পড়ে কপ্টারটি। ফলে কার্যত সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগতে শুরু করেন পাইলট। তিনি দিশেহারা হয়ে পড়েন আর তার ফলেই দুর্ঘটনার মুখে পড়ে এই কপ্টার।

জানা গিয়েছে, CFIT তখনই ঘটে যখন একটি ওড়ারযোগ্য বিমান, পাইলটের সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে থাকাকালীন, অসাবধানতাবশত ভূখণ্ড, জল অথবা কোনও বাধার মধ্যে উড়ে যায়। IATA (ইন্টারন্যাশনাল এয়ার ট্রান্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশন) এর মতে, এই শব্দটি এমন দুর্ঘটনাকে বোঝায় যেখানে ভূখণ্ড, জল অথবা অন্য কোনো বাধার সঙ্গে নিয়ন্ত্রণে থাকা অবস্থায় বিমানের সংঘর্ষ ঘটে। ইউনাইটেড স্টেটস ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন জানাচ্ছে, CFIT হল ভূমির সঙ্গে একটি অনিচ্ছাকৃত সংঘর্ষ (ভূমি, পর্বত, জলের অংশ, বা একটি বাধা) যখন একটি বিমান ইতিবাচক নিয়ন্ত্রণে থাকে। অর্থাৎ বিমানটি ফ্লাইট ক্রুদের নিয়ন্ত্রণে থাকা অবস্থাতেই এই ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে।

এদিকে যেহেতু তদন্তকারীরা দুর্ঘটনার সবচেয়ে সম্ভাব্য কারণ নির্ধারণের জন্য সমস্ত উপলব্ধ প্রত্যক্ষদর্শীদের জিজ্ঞাসাবাদ করার পাশাপাশি ককপিট ভয়েস রেকর্ডারও বিশ্লেষণ করেছেন, সেহেতু সমস্ত কারণ খতিয়ে দেখার পরই তাঁরা কোনও রকম অন্তর্ঘাত বা কপ্টার দেখভালের অভাবের মতো বিষয়গুলিকে নাকচ করছে। বরং কেবলমাত্র আবহাওয়া ও চালকের দিগভ্রান্ত হওয়াকেই দুর্ঘটনার সম্ভাব্য কারণ হিসাবে চিহ্নিত করেছেন তদন্তকারীরা। দেশের শীর্ষ হেলিকপ্টার পাইলট এয়ার মার্শাল মানবেন্দ্র সিংয়ের নেতৃত্বে ট্রাই-সার্ভিস কোর্ট অফ এনকোয়ারি ইতিমধ্যেই প্রাথমিক তদন্তের ফলাফল জমা দিয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, তদন্তের ফলাফলের উপর ভিত্তি করে, কোর্ট অফ এনকোয়ারি কিছু সুপারিশ করেছে যেগুলি পর্যালোচনা করা হচ্ছে।