ত্রিপুরায় স্কুল পড়ুয়াদের পাঠ্যক্রমে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের লেখা বই! ফের নয়া জল্পনা

ত্রিপুরায় স্কুল পড়ুয়াদের পাঠ্যক্রমে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের লেখা বই! ফের নয়া জল্পনা
ত্রিপুরায় স্কুল পড়ুয়াদের পাঠ্যক্রমে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের লেখা বই! ফের নয়া জল্পনা

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ ত্রিপুরার রাজা বিক্রম কিশোর মানিক্যকে নিয়ে বই লিখেছেন ত্রিপুরার বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের লেখা সেই বইয়ের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়েছিল খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হাত ধরেই। বিপ্লব দেবের লেখা সেই বইয়ের একটি অধ্যায় এবার ত্রিপুরার স্কুলের সিলেবাসে যুক্ত হতে চলেছে। বিবেকানন্দ বিচার মঞ্চ নামক সংগঠন ত্রিপুরার শিক্ষামন্ত্রীর কাছে বিষয়টি সম্পর্কে চিঠি লিখেছে।

সূত্রের খবর, এই বিষয়ে ভাবনা-চিন্তা শুরু হয়েছে ইতিমধ্যেই। সূত্রের খবর, সবুজ সংকেতও দিয়ে দিয়েছে শিক্ষা দফতর। খুব দ্রুত পাঠ্যক্রমে যুক্ত হতে চলেছে মুখ্যমন্ত্রীর লেখা। ২০২৯ সালে প্রকাশিত ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের লেখা বইয়ের নাম আধুনিক ত্রিপুরার শিল্পকার মাহারাজা বীর বিক্রম কিশোর মাণিক্য। হিন্দি এবং বাংলা উভয় ভাষাতেই বইটি প্রকাশিত হয়েছিল। সম্প্রতি দাবী ওঠে যে, ওই বইয়ের প্রথম অধ্যায় সিলেবাসে যুক্ত করতে হবে।

সূত্রের খবর, ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর লেখা বইটির ওই অধ্যায়ে আধুনিক ত্রিপুরার ইতিহাস বর্ণিত হয়েছে। এখানেই শেষ নয়, এও শোনা যাচ্ছে যে, ত্রিপুরার রাজতন্ত্রের সঙ্গে মোদি সরকারের শাসনতন্ত্রের তুলনা করা হয়েছে ইতিবাচক ভঙ্গিতে। সরাসরি বিজেপি সরকারের প্রশংসাসূচক অধ্যায়, ছাত্রদের পড়ানো কতটা যুক্তিযুক্ত তা নিয়ে স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে ইতিমধ্যেই।

জানা গিয়েছে, পঞ্চম শ্রেণির সিলেবাসে যুক্ত হতে পারে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর লেখা বইয়ের ওই অধ্যায়। আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে ছাত্রছাত্রীরা সেক্ষেত্রে এই অধ্যায় পড়তে পারবে। শিক্ষা দফতর বিষয়টি নিয়ে বিবেচনা সেরে ফেলেছে। এখন শুধু অপেক্ষা মুখ্যমন্ত্রীর সবুজ সংকেতের।