মালদায় স্ল্যুইস গেটের জলে স্নান করতে নেমে তলিয়ে মৃত্যু ২ যুবকের, আশঙ্কাজনক ১

মালদায় স্ল্যুইস গেটের জলে স্নান করতে নেমে তলিয়ে মৃত্যু ২ যুবকের, আশঙ্কাজনক ১
মালদায় স্ল্যুইস গেটের জলে স্নান করতে নেমে তলিয়ে মৃত্যু ২ যুবকের, আশঙ্কাজনক ১

মালদার মাগুরা এলাকায় স্নান করতে নেমে তলিয়ে মৃত্যু হল ২ যুবকের। আশঙ্কাজনক অবস্থায় ১ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। স্থানীয় গ্রামীণ হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করা হয়েছে। তাঁর অবস্থা এখন স্থিতিশীল। জানা গিয়েছে, মৃত দুই যুবকের নাম বিবেক রৌশান (‌২২)‌ ও আসিফ হোসেন (‌২২)‌। চিকিৎসারত যুবকের নাম আনোয়ার হোসেন (‌২৫)‌। এই মর্মান্তিক ঘটনায় এলাকা জুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে চাঞ্চল্য।

মালদার রতুয়া-‌২ ব্লকের শ্রীপুর-‌১ গ্রাম পঞ্চায়েতের মাগুরা এলাকায় রয়েছে এই স্ল্যুইস গেটটি। ইতিমধ্যেই বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে স্ল্যুইস গেটটি। প্রায় নিত্যদিনই বহু মানুষ সেখানে স্নান করতে আসেন। অন্যদের দেখে শুক্রবার দুপুর নাগাদ ওই স্ল্যুইস গেটের জলে স্নান করতে আসেন বিবেক, আসিফ ও আনোয়ার। তাঁদের সঙ্গে আরও অনেকেই সেখানে হুল্লোড় করে স্নান করছিলেন। তখনই স্নান করার সময় জলে তোড়ে তলিয়ে যান ওই ৩ জন।

খবর পাওয়া মাত্রই সঙ্গে সঙ্গে উদ্ধার কাজে নেমে পড়েন স্থানীয়রা বাসিন্দারা। তাঁদের চেষ্টায় আনোয়ারকে সঙ্গে সঙ্গে উদ্ধার করা সম্ভব হয়। তাঁকে স্থানীয় সামসি গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তির করার ব্যবস্থা করা হয়। আপাতত তিনি কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠছেন। অন্যদিকে, বিকেলে প্রথমে উদ্ধার হন বিবেক। তারপরে আসিফকে উদ্ধার করা হয়। তাঁদের দুজনকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকেরা তাঁদের মৃত বলে ঘোষণা করেন।

জানা গিয়েছে, ঘটনাস্থল থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে ওই তিন যুবকের বড়ি। বিবেকের বাড়ি পুখুরিয়া থানার পীরগঞ্জের অচিনটোলা হাট এলাকায়। তিনি ইঞ্জিয়ারিং নিয়ে পড়াশোনা করছিলেন। আসিফের বাড়ি সংশ্লিষ্ট থানার কুতুবগঞ্জ এলাকায়। ঘটনা প্রসঙ্গে শ্রীপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান রোশনারা খাতুন জানান, “কিছুদিন ধরেই ওখানে যুবকদের দাপাদাপি বেড়েছে। ঝুঁকি নিয়ে চলছে স্নান। স্নান করার ছবি তোলা হচ্ছে। অবিলম্বে সেখানে স্নান করা বন্ধ করতে হবে। পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে বসে আলোচনা করে তারপর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।” অন্যদিকে, চাঁচল মহকুমার মহকুমাশাসক সঞ্জয় পাল জানিয়েছেন, “ঘটনার পর ওখানে স্নান করা পুরোপুরি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এরপর থেকে ওখানে কাউকে স্নান করতে নামতে দেওয়া হবে না। ওই জায়গায় নজরদারি চালানো হবে।”