ঋতুমতী অবস্থায় করেছিলেন সরস্বতী পুজো, এবার বিয়ের সম্প্রদানে ডাক পেলেন রায়গঞ্জের ঊষশী!

ঋতুমতী অবস্থায় করেছিলেন সরস্বতী পুজো, এবার বিয়ের সম্প্রদানে ডাক পেলেন রায়গঞ্জের ঊষশী! / Image Source: Facebook Post By @ushasi67
ঋতুমতী অবস্থায় করেছিলেন সরস্বতী পুজো, এবার বিয়ের সম্প্রদানে ডাক পেলেন রায়গঞ্জের ঊষশী! / Image Source: Facebook Post By @ushasi67

বেশ কিছুদিন আগেই ঋতুস্রাব চলাকালীন অবস্থায় দেবী সরস্বতীর পুজো করেছিলেন তিনি। সেকথা লিখে নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে একটি পোস্টও শেয়ার করেছিলেন। যা ইতিমধ্যেই বেশ ভাইরাল হয়ে উঠেছে৷ এবার রায়গঞ্জের সেই ছাত্রী, ঊষশী চক্রবর্তী, ডাক পেলেন বিয়ের সম্প্রদানেরও। সম্প্রতি বিয়েতে পৌরহিত্য করার জন্য ডাক পড়েছে তাঁর। যদিও সেই প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছেন তিনি।

সম্প্রতি বংনিউজ২৪x৭-কে ঊষশী জানিয়েছেন, সরস্বতী পুজো করার পর তাঁর কাছে বিয়েতে পৌরহিত্যেরও ডাক আসে। আগামী ১ মার্চ কলকাতার মধ্যমগ্রাম থেকে বিয়ে সম্প্রদানের জন্য আমন্ত্রণ পান। এরপর আরও দু’টো বিয়েতে পৌরহিত্যের ডাক আসে তাঁর। কিন্তু প্রতিটিই তিনি ফিরিয়ে দিয়েছেন। কারণ, বিয়েতে পৌরহিত্য করার মতো ধাতস্ত তিনি এখনও হননি। তাছাড়াও বিয়ের মন্ত্রও এখনও পুরোপুরি আয়ত্তে আসেনি তাঁর। তাই বিনীত ভাবেই প্রত্যেকটি প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন তিনি।

তবে বিয়ের সম্প্রদানের প্রস্তাব ফেরালেও নিজের বাড়িতে বৈদিক আচারে পুজো চালিয়ে যেতে চান তিনি। আগামী মহা শিবরাত্রিতেও বাড়িই পুজোয় পৌরহিত্যের দায়িত্ব তাঁরই ওপর, একথাও জানিয়েছেন তিনি। এর আগে নিজের মতো করে পুজো করলেও চলতি বছরের সরস্বতী পুজোই ছিল পুরোহিত হিসাবে ঊষশীর প্রথম পুজো। আর এভাবেই তিনি আরও এগিয়ে যেতে চান। তবে বিয়ের সম্প্রদান বা বাড়ির বাইরে পৌরহিত্য করার বিষয়ে এখনও কিছুই ভাবেননি তিনি। বংনিউজকে একথাও জানিয়েছেন ঊষশী।

যদিও ঋতুমতী অবস্থায় সরস্বতী পুজো করার জন্য ইতিমধ্যেই ঊষশীকে হুমকি দেওয়া থেকে কটূক্তি শুরু হয়ে গিয়েছে৷ এমনকি প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারণ হিসাবেও নাকি দায়ী থাকবেন তিনিই! এমন কথাও ভেসে বেড়াচ্ছে তাঁকে ঘিরে। প্রায়ই ফোন বা মেসেজে গন-ধর্ষণের হুমকিও দেওয়া হচ্ছে তাঁকে।

অবশ্য এসবে বিন্দুমাত্র চিন্তিত নন এই সাহসী মেয়ে। তাঁর কথায়, সমাজের বস্তাপচা কিছু চিরাচরিত নিয়মের বিরুদ্ধে কাউকে না কাউকে এগিয়ে আসতেই হবে। কুসংস্কারের বেড়াজাল ভেঙেই এগোতে হবে আগামীর পথে। তিনি আগেই জানতেন এই পথ বড়ই কন্টকময়। পদে পদে আসবে বাধা-বিপত্তি। আসবে সমালোচনার ঢেউ। তবু তিনি থেমে থাকবেন না। তাঁকে দমিয়ে রাখাও যাবে না কোনওভাবে। নিজের আত্মবিশ্বাসে ভর করেই নিজের কাজ করে যাবেন তিনি। তাই আপাতত আগামী শিবরাত্রির পুজো নিয়েই দিনরাত চিন্তাভাবনা চলছে তাঁর। সেদিন আবার নিজের বাড়িতে শিবের আরাধনায় রত হবেন তিনি। নিয়ম মাফিক করবেন পুজোও।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.