ভক্তশূন্য অবস্থায় ভার্চুয়ালি পুজো চলছে ঐতিহ্যবাহী সেবকেশ্বরী কালী মন্দিরে

ভক্তশূন্য অবস্থায় ভার্চুয়ালি পুজো চলছে ঐতিহ্যবাহী সেবকেশ্বরী কালী মন্দিরে
ভক্তশূন্য অবস্থায় ভার্চুয়ালি পুজো চলছে ঐতিহ্যবাহী সেবকেশ্বরী কালী মন্দিরে

নিজস্ব প্রতিনিধি, শিলিগুড়িঃ আজ কালীপুজো, দীপাবলি। আজ চারিদিকে সেজে উঠছে আলোর মালায়। এই দিনে বিভিন্ন জায়গায় মা কালী পূজিতা হন মহা সাড়ম্বরে। শিলিগুড়িতেও আজ মার আরাধনা হচ্ছে।  তবে, অন্যান্য জায়গার মত ভক্তসমাগমে ন্য। ভক্তশূন্য অবস্থায় ভার্চুয়ালি পুজো হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী সেবকেশ্বরী কালী মন্দিরে। শিলিগুড়ি থেকে সিকিম যাওয়ার পথে ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কে পাহাড়ের গায়ে অবস্থিত সেবকেশ্বরী কালী মন্দির। প্রতিবছর জাঁকজমক করেই মা’র পুজো হয়ে থাকে। ভিন রাজ্য থেকে ভক্তরা আসতো পুজোর দিনে। কিন্তু গত বছর থেকে করোনার জন্য সব আয়োজনে ভাটা পড়েছে।

গতবারের মতো এবারও মন্দিরে ভক্তশূন্য রেখে পুজো হয়েছে। তিনজন পুরোহিত মিলে মাকে পুজো দিলেন। ভোগ নিবেদন করা হয়েছে, কিন্তু ভোগ বিলি হল না। এমনকি সেবকেশ্বরী মন্দিরে অনলাইনের মাধ্যমেই অঞ্জলি চলছে। মন্দির কর্তৃপক্ষ নির্দিষ্ট একটি মোবাইল নাম্বার দিয়ে দিয়েছে সেই নাম্বারেই অনলাইনের মাধ্যমে পুজো দিয়ে অঞ্জলি দিয়েছে ভক্তরা।

জানা গিয়েছে, ১৯৫২ সাল থেকে পুজো হয়ে আসছে এই মন্দিরে। সে বছর সেবক পাহাড়ে ত্রিশূল পঞ্চমুন্ডির আসন এবং বেদি দেখতে আসেন এক সাধক। তারপর থেকেই সেবকেশ্বরী মন্দিরে পুজো হয় তান্ত্রিক মতে। এর পরেই সেবকের পাহাড় কেটে তৈরি হয়েছে সেবকেশ্বরী কালী মন্দির।

১০৭ টি সিঁড়ি পেরিয়ে পৌঁছাতে হয় মন্দিরে। কালিপুজোর সময় অনেক ভক্ত মানত করে পাঠা বলিও দিয়ে থাকে। কিন্তু করোনার কারনে এখন তাও বন্ধ। মন্দিরের অন্যতম পুরোহিত নন্দকিশোর গোস্বামী জানিয়েছেন, কোভিড বিধি মেনে, পুজো হচ্ছে মন্দিরে। তাই মায়ের পুজোতে ভক্তদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। ভক্তরা অঞ্জলি দিতে পারবেন, তবে নির্দিষ্ট নাম্বার দিয়ে দেওয়া হবে সেই নাম্বারে অনলাইনের মাধ্যমে অঞ্জলি দিতে পারবে।