নদীয়ায় গঙ্গা ভাঙ্গনে জল প্রকল্প, প্রাথমিক বিদ্যালয়, শিশু উদ্যান তলিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা

নদীয়ায় গঙ্গা ভাঙ্গনে জল প্রকল্প, প্রাথমিক বিদ্যালয়, শিশু উদ্যান তলিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা
নদীয়ায় গঙ্গা ভাঙ্গনে জল প্রকল্প, প্রাথমিক বিদ্যালয়, শিশু উদ্যান তলিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা

নিজস্ব প্রতিবেদনঃ নদীয়াঃ নদীয়ার শান্তিপুরে গঙ্গা ভাঙ্গনের ফলে জল প্রকল্প, প্রাথমিক বিদ্যালয়, শিশু উদ্যান তলিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা। আবারো শহরের ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের স্টিমার ঘাট এলাকায় ভাঙ্গন শুরু হয়! গতকাল এলাকাবাসী প্রথম খেয়াল করেন জল প্রকল্পের প্রাচীরের পাশে ফাটল।

এরপর ক্রমশ ভাঙতে দেখা যায় ওই স্থানের আশেপাশের বেশ খানিকটা জায়গা। দীর্ঘ বেশ কয়েকবার পুরুষ যাবত বাস করে আসা স্থানীয় বাসিন্দারা জানান গঙ্গার নাব্যতা কমে যাওয়ার ফলে, জাহাজ চলাচলের সময় জলরাশি ধাক্কা খায় পাড়ে। জনপ্রতিনিধিদের জানিয়েও কিছু বালির বস্তা ছাড়া সুরাহা হয়নি পাড় বাঁধানোর স্থায়ী ব্যবস্থা।

ওই স্থানেই শিশুদের একটি উদ্যান তৈরি হলেও উদ্বোধনের আগেই হয়তো তলিয়ে যেতে পারে জলের তলায়, শান্তিপুর শহরের সরবরাহের পানীয় জল প্রকল্পের নির্মাণ প্রকল্প টি ও তলিয়ে যেতে বসেছে জলের তলায়। স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়েও ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশোনার থেকেও বেশি গুরুত্ব দিতে হয় দুর্ঘটনা এড়াতে।

ভাঙ্গনের ফলে রাস্তার একেবারে পাশেই পৌঁছেছে গঙ্গা! অন্যদিকে বসতবাড়ি মাঝখানে ব্যবধান ১৫ ফুট মতো। বিশেষ সূত্রে জানা যায় শান্তিপুরে ভাগিরতি তীরবর্তী একের পর এক ভাঙ্গনের খবর উঠে এসেছে সংবাদমাধ্যমে।কিছুদিন আগেই শান্তিপুর শহরের চরসারাগর এলাকায় বিঘের পর বিঘে চাষের জমি, বসতবাড়ি তলিয়ে গেলেও সুরাহা পাননি কোনো।‌ এবার সরকারি সম্পত্তি রক্ষার্থে কী পদক্ষেপ নেয় সেটাই দেখার অপেক্ষায়! তবে আজ সকাল ১১ টা নাগাদ ভাঙ্গনের পরিমাপের জন্য সেচ দপ্তর থেকে মাপ নিতে দেখা গেল চিরাচরিত ভাবে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.