বৃহস্পতিবার, ১৯ মে, ২০২২

আরও সহজে, ১৫ দিনের মধ্যে বিল্ডিং প্ল্যান-মিউটেশন-ট্রেড লাইসেন্সে অনুমোদন! বড় ঘোষণা রাজ্যের

০১:০০ পিএম, আগস্ট ১৭, ২০২১

আরও সহজে, ১৫ দিনের মধ্যে বিল্ডিং প্ল্যান-মিউটেশন-ট্রেড লাইসেন্সে অনুমোদন! বড় ঘোষণা রাজ্যের

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ রাজ্য সরকারের নয়া উদ্যোগ। রাজ্যের পুরসভা এলাকাগুলিতে অনলাইনে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ পরিষেবা চালু করতে চলেছে সরকার। সোমবার রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র ভার্চুয়ালি তিনটি পরিষেবা চালু করার কথা ঘোষণা করেন। জানা গিয়েছে, এখন থেকে অনলাইনে আরও সহজে, কম সময়ে বিল্ডিং প্ল্যান পাশ, মিউটেশন এবং ট্রেড লাইসেন্স পাওয়া যাবে বলে ঘোষণা করা হয়েছে। এই পরিষেবা সম্পন্ন করার সময়সীমাও ১৫ দিন নির্দিষ্ট করা হয়েছে। রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র বলেন যে, ‘এর ফলে বহু মানুষ উপকৃত হতে চলেছেন।’

এবার জেনে নেওয়া যাক, এই তিনটি পরিষেবা কী কী? এক সিঙ্গল উইন্ড পদ্ধতিতে বিল্ডিং প্ল্যান অনুমোদন দেওয়া হবে, অর্থাৎ ‘ই-গৃহনকশা’। দুই কমন অ্যাপ্লিকেশন ফর্মের মাধ্যমে দোকান ও সংস্থার রেজিস্ট্রেশন, যার পোশাকি নাম ‘ই-ট্রেড লাইসেন্স’। আর তিন নম্বরটি হল, পুর মিউটেশন ও অ্যাসেসমেন্ট করার সুবিধা, অর্থাৎ ‘ই অ্যাসেসমেন্ট’।

অর্থমন্ত্রীর ধারণা অনুযায়ী, দেশের মধ্যে প্রথম এই রাজ্যে এই ব্যবস্থা চালু হল। এদিন নবান্নে মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী-সহ কয়েকটি দফতরের সচিবরা উপস্থিত ছিলেন। ছিলেন পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী চন্দ্রীমা ভট্টাচার্য। জানা গিয়েছে, প্রাথমিকভাবে কয়েকটি পুরসভায় এই ব্যবস্থা চালু করা হচ্ছে। আগামী তিন মাসের মধ্যে ধাপে ধাপে মোট ১২৩ টি পুরসভাতে চালু করা হবে অনলাইন এই সুবিধাগুলো।

অর্থমন্ত্রী এই নয়া পরিষেবা প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, অনলাইনে ট্রেড লাইসেন্স, মিউটেশন এবং বাড়ির প্ল্যান অনুমোদন করতে হলে মধ্যস্ততাকারী বা দালালদের আর কোনও ভূমিকা থাকবে না। এর ফলে বাড়তি খরচের হাত থেকে রক্ষা পাবেন জনসাধারণ। পাশাপাশি করোনাকালেও এইসব অতি গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলিও আটকে থাকবে না। কারণ এই কাজগুলি আটকে থাকলে, মানুষকে নানা ধরনের অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়। ট্রেড লাইসেন্সের জন্য আটকে যাবে ব্যবসার কাজও। এছাড়াও এখন লকডাউনের জন্য মানুষ দূরে যাতায়াত করতে পারছেন না। সেই কারণেই এই তিনটি পরিষেবায় অনলাইন পরিষেবা চালু করা হল বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

এদিকে চন্দ্রীমা ভট্টাচার্য বলেন, ‘লাইসেন্স, মিউটেশন ও প্ল্যান অনুমোদনের কাজ করতে গিয়ে, দালালদের কাছে অনেককেই প্রতারিত হয়েছেন, সর্বশান্ত হয়েছেন। এই পরিষেবার চালুর কারণে এখন নিজেরাই বাড়িতে বসে কম্পিউটারে এসব কাজ করতে পারবেন।’

ইতিমধ্যেই এই কাজের জন্য বিভিন্ন পুরসভা এলাকায় কর্মীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। আবার এখনও কয়েক জায়গায় প্রশিক্ষণ চলছে। জানা গিয়েছে, আবেদন করার ১৫ দিনের মধ্যে আবেদনকারীকে পরিষেবা দিতে হবে। সময়ের মধ্যে এই পরিষেবা না পেলে, অভিযোগ করা যাবে। অভিযোগের ভিত্তিতে ব্যবস্থা যথাযথ নেবে সরকার। জানা গিয়েছে, যেকোনও সমস্যায় যোগাযোগ করা যাবে ১৮০০৩৪৫৮২৪১-নম্বরে, একটি হেল্প ডেস্কেরও ব্যবস্থাও থাকছে। [email protected] এই মেল আইডি-তে মেল করেও পরিষেবা নিয়ে যাবতীয় তথ্য জানা যাবে। শুধু পরিচয়পত্র ও ব্যবসার নথি থাকলেই আবেদন করা যাবে।