পুরুলিয়ার সভা থেকে কী বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি, একনজরে দেখে নিন

পুরুলিয়ার সভা থেকে কী বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি, একনজরে দেখে নিন / ছবি সৌজন্যে : Screengrab from Facebook Video Posted By @MamataBanerjeeOfficial
পুরুলিয়ার সভা থেকে কী বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি, একনজরে দেখে নিন / ছবি সৌজন্যে : Screengrab from Facebook Video Posted By @MamataBanerjeeOfficial

বংনিউজ২৪x৭ ডেস্কঃ রাজ্যের দৌড়গোড়ায় ২০২১ এর বিধানসভা ভোট। রাজ্যের শাসক দলে কে আধিপত্ত বিস্তার করবে তা নিয়ে চলছে রাজনৈতিক বিরোধ। রাজনৈতিক দলগুলি তাঁদের অবস্থান পাকাপক্ত করতে ইতিমধ্যেই আসরে নেমে পড়েছে। চলছে তৃণমূল-বিজেপি বিরোধ। এরমধ্যে তৃণমূল শিবির প্রকাশ করেছে তাদের প্রার্থী তালিকা। আর এবার নির্বাচনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি লড়বেন নন্দীগ্রাম থেকে। ইতিমধ্যে তিনি মনোনয়ন পত্র জমাও দিয়েছেন। তবে তারপরই নন্দীগ্রামে এক দুর্ঘটনার কবলে পরেন তিনি। তাঁর জেরে তিনি পায়ে আঘাত পান। তারপরই চিকিৎসা শুরু হয়। বর্তমানে তাঁর একটি পা প্লাস্টার করা হয়েছে।

তবে তিনি তাতেও দমে থাকেননি। প্লাস্টার করা পা নিয়েই হুইলচেয়ারে করে নির্বাচনের প্রচারে যোগ দিয়েছে। আজ নির্বাচনী প্রচারে তিনি উপস্থিত হয়েছেন পুরুলিয়ায়। বাঘমুণ্ডির সভা থেকে আজ মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি কী বক্তব্য রাখলেন একনজরে দেখে নিন.. তিনি বললেন গত ১০ ই মার্চ একটি ঘটনার কারণে তিনি চোট পেয়েছেন, পা প্লাস্টার করা আছে, হাটতে পারছেন না। তবে পায়ে চোট নিয়েই তিনি নির্বাচনী প্রচারে এসেছেন। তিনি এও বলেন, হয়ত অনেকে ভেবেছিল ভাঙা পা নিয়ে তিনি আর বেরতে পারবেন না। এছাড়া তিনি বলেন অযোধ্যার সৌন্দর্য বর্তমানে বিশ্বের মধ্যে অন্যতম আকর্ষণ।

এছাড়া তিনি বলেন, এই এলাকায় তিনি বহু উন্নয়ন মূলক কাজ করেছেন। স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল থেকে শুরু করে বীরসা মুণ্ডার নামে বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি করেছেন। মেয়েদের কন্যাশ্রী, রূপশ্রী দিয়েছেন। এমনকি তফশিলি অ্যাডভাইসারি কাউন্সিল তৈরি করেছেন। অন্যদিকে তিনি আগামীদিনে বাড়িতে বাড়িতে বিনামুল্যে রেশন দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। এছাড়া জলের সমস্যা দূরীকরণের কথাও বলেন তিনি। আজ তিনি আরও নানা বক্তব্য রাখেন পুরুলিয়ার মঞ্চে।

উল্লেখ্য ইতিমধ্যেই নির্বাচন কমিশন বিধানসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণা করেছেন। আগামী ২৭ মার্চ থেকেই বাংলার শুরু হবে নির্বাচন। আর তার আগে তৃণমূলে বিজেপির শীর্ষ নেতার যোগদান কতটা প্রভাব ফেলবে নির্বাচনে তা সময় বলবে। কে হবে বাংলার শাসক? কে হাসবে শেষ হাসি তা শুধুমাত্র নির্বাচনের ফলাফলই বলবে। শেষমেশ কে বাংলার শাসকের স্থান দখল করবে তা দেখার জন্য অপেক্ষায় রাজনৈতিক মহল সহ জনগন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.