মেলেনি ছুটি! পুলিশ স্টেশনেই বিয়ে-পূর্বক আচার অনুষ্ঠানে সামিল হলেন এই মহিলা কনস্টেবল!

মেলেনি ছুটি! পুলিশ স্টেশনেই বিয়ে-পূর্বক আচার অনুষ্ঠানে সামিল হলেন এই মহিলা কনস্টেবল!
মেলেনি ছুটি! পুলিশ স্টেশনেই বিয়ে-পূর্বক আচার অনুষ্ঠানে সামিল হলেন এই মহিলা কনস্টেবল!

করোনা আতঙ্কে কার্যত জেরবার গোটা দেশ। দিনের পর দিন চড়ছে করোনার গ্রাফ। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সংক্রমণের হারও। তবে দেশের এই কঠিন পরিস্থিতিতেও কিন্তু নিজেদের কাজ বন্ধ রাখেননি কোভিড-যোদ্ধারা। চিকিৎসক হন কি পুলিশ, নিজেদের কাজ নিষ্ঠা ভরে ঠান্ডা মাথায় সামলে যাচ্ছেন তাঁরা। দেশের জনগণকে সুরক্ষিত রাখতে অক্লান্ত পরিশ্রম করে চলেছেন তাঁরা।

দেশের পরিস্থিতি এখন এমনই যে, নিজেদের দিকে তাকানোর বিন্দুমাত্র সময় পাচ্ছেন না কোভিড যোদ্ধারা। সমস্ত কিছু থেকে আত্মত্যাগ দিয়েই কাজ করে যেতে হচ্ছে, মিলছে না কোনও ছুটিও৷ এই অবস্থায় সম্প্রতিই প্রকাশ্যে এসেছিল রাজস্থানের এক মহিলা কনস্টেবলের পুলিশ স্টেশনেই ‘গায়ে হলুদ’-এর ঘটনা৷ সেই রাজস্থানই ফের সাক্ষী রইল একই রকমের আরেকটি ঘটনার। যেখানে ছুটি না মেলায় পুলিশ স্টেশনেই বিয়ে-পূর্বক আচার অনুষ্ঠান পালনে মেতে রইলেন আরেক মহিলা কনস্টেবল।

জানা গিয়েছে, এই ঘটনাটি রাজস্থানের ঝুনঝুনু জেলার বু্হানা পুলিশ স্টেশনের। পাত্রী মহিলা কনস্টেবলটির নাম সোনিয়া। সামনেই তাঁর বিয়ে। বিয়ের পূর্বে ‘বিন্দোরি সেরিমনি’ পালন করার উদ্দেশ্যে কাজ থেকে ছুটি প্রার্থনা করেছিলেন তিনি৷ কিন্তু দেশের এই বেহাল অবস্থায় মেলেনি কোনও ছুটি বাধ্য হয়ে পুলিশ স্টেশনেই রীতি নিয়ম পালন করতে হয় তাঁকে। প্রসঙ্গত, এই আচারে বিয়ের আগে শাড়ি বা লেহেঙ্গা এবং বিভিন্ন গয়নায় সজ্জিত হয়ে, পাত্রীকে স্থানীয় কোনও মন্দিরে গিয়ে ভগবানের আশীর্বাদ নিতে হয়৷ পাত্রীকে মন্দির পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া হয়, ঘোড়া বা পালকিতে চাপিয়ে। সঙ্গে থাকেন পরিবারের সদস্যরা৷

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে সোনিয়ার ‘বিন্দোরি সেরিমনি’-র সেই ছবি। তাতে দেখা যাচ্ছে, নীল-গোলাপি চুড়িদারে সজ্জিত সোনিয়া ঘোড়ায় চেপে মন্দিরের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন। আশেপাশে পরিবারের কেউ না থাকলেও রয়েছেন সহকর্মীদের দল৷ মুহূর্তটিকে স্মরণীয় করে রাখতে চেষ্টার কোনও ত্রুটিই রাখছেন না তাঁরা। সমস্ত রীতি-নিয়মও পালন করছেন তাঁরাই। ইতিমধ্যে নেটমাধ্যমেও ভিডিওটি বেশ ভাইরাল হয়ে উঠেছে।

প্রসঙ্গত, এই মুহূর্তে করোনার দাপটে অসহায় সারা দেশ। গত ২৪ ঘন্টার সারা দেশে নতুন আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় সাড়ে তিন লাখ৷ মারাও গিয়েছেন বহু মানুষ। এই অবস্থায় চিকিৎসকদের পাশাপাশি পরিস্থিতি সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে প্রশাসন ব্যবস্থাও। নিজেদের সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যের কথা বিসর্জন দিয়েই দেশের মানুষের সেবায় আত্মবলিদান দিয়ে চলেছেন তাঁরা।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.