হিমালয় থেকে কুম্ভমেলায় এলেন ১৮ ইঞ্চির এই নাগা সাধু! দেখতে ভীড় জমছে এলাকায়

হিমালয় থেকে কুম্ভমেলায় এলেন ১৮ ইঞ্চির এই নাগা সাধু! দেখতে ভীড় জমছে এলাকায়
হিমালয় থেকে কুম্ভমেলায় এলেন ১৮ ইঞ্চির এই নাগা সাধু! দেখতে ভীড় জমছে এলাকায়

ভারতবর্ষ বৈচিত্রের দেশ। সর্ব-ধর্ম সমন্বয়ে হাজারও মানুষ বাস করেন এখানে। তাই সারা বছর কিছু না কিছু উৎসব বা পুজো-পার্বণ হতেই থাকে। আর এই উৎসবকে কেন্দ্র করে বসে মেলাও। দেশের সেরকমই এক অতি জনপ্রিয় মেলা হল কুম্ভ মেলা। যেখানে শুধু দেশ নয়, দেশের বাইরের বহু মানুষেরও সমাগম ঘটে এখানে। আর এই মেলার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য আকর্ষণ থাকেন নাগা সাধুরা। শোনা যায়, তাঁরা নাকি খোদ হিমালয় থেকে নেমে এসেছেন। তাঁদের নাকি অজানা সব ক্ষমতাও মজুত।

চলতি বছরে গত সপ্তাহ থেকে হরিদ্বারে শুরু হয়েছে এই কুম্ভমেলা। কোভিড পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে কড়া নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হয়েছে মেলা প্রাঙ্গণ। তবে এর মধ্যেই এসে হাজির হয়েছেন নাগা সাধুরা। তাঁদের মধ্যে একজনই এ বছরে দর্শনার্থীদের বিশেষ আকর্ষণও কেড়েছেন। কারণ? আর কিছুই না। তিনি বিশ্বের সবচেয়ে কম উচ্চতার এক সাধু। যার উচ্চতা মাত্র ১৮ ইঞ্চি। তবে, উচ্চতা যাই হোক না, সেই সাধু নাকি মাথায় হাত রেখেই মনের কথা বুঝতে পেরে যাচ্ছেন। এমনই নাকি তাঁর মহিমা!

জানা গিয়েছে, সাধুটির নাম নারায়ণ নন্দ গিরি মহারাজ। বয়স ৫৫ বছর। মাথায় তিলক কাটা। গলায় নানা রকমের রুদ্রাক্ষের মালা। যা তিনি সারাক্ষণ জপ করছেন। উনি উঠে দাঁড়াতে বা হাঁটতে পারেন না। সারাদিন বসে থাকেন। তাঁর পায়ের আকার একেবারেই ছোট। তবে এই সাধু নাকি মাথায় হাত দিলেই দুঃখ ভুলে মন ভালো হয়ে যাচ্ছে। এমনকি শরীর অসুখও সেরে গিয়ে মানুষ সুস্থ হয়ে যাচ্ছেন।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, ১৮ ইঞ্চির সাধুকে দেখতে ভীড় জমিয়েছেন বহু দর্শনার্থীই। হাত তুলে তাঁদের সকলকে আশীর্বাদও করছেন সেই সাধু। সকলেই প্রায় বলছেন, সাধু বাবার আশীর্বাদ পেলেই শরীর-মন সব সুস্থ হয়ে উঠছে। তবে এর সত্যতা কতটা, তা এখনও জানা যায়নি।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.