সর্দি কাশির থেকে মুক্তি পেতে সিরাপ নয় মধুর উপকারিতা জানলে অবাক হবেন

সর্দি কাশির থেকে মুক্তি পেতে সিরাপ নয় মধুর উপকারিতা জানলে অবাক হবেন
সর্দি কাশির থেকে মুক্তি পেতে সিরাপ নয় মধুর উপকারিতা জানলে অবাক হবেন

রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র CDC-র মতানুযায়ী, ভাইরাল সংক্রমণ হলো গলা ব্যথার আসল কারণ। এছাড়াও ধূমপান এবং অ্যালার্জি থেকেও কিছু ক্ষেত্রে গলা ব্যথা হয়। সকলেরই জানেন যে কাশি সারাতে সবসময়ই মধু সাহায্য করে। গলা ব্যথা, খুশখুশে ভাব, সারাতে মধুর জুড়ি মেলা ভার। মনে রাখবেন, মধু অ্যান্টি ব্যাক্টিরিয়াল ও অ্যান্টি ফাঙ্গাল। কোথাও কেটে গেলে মধু সেটিও সারিয়ে তুলতে সক্ষম। গলা ব্যথার উপশমে মধু কীভাবে কাজ করে দেখে নিন-

মধু কাশি এবং গলা ব্যথার জন্য খুবই উপকারী। তাই রাতে শোবার সময় দুই চামচ মধু খেলে ব্যথা এবং কাশি নিরাময় হয়। এ ছাড়া গরম জলের সঙ্গে দুই টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে খেলে অনেক উপকার পাবেন। আপনি চাইলে দিনে একবার মধু খেতে পারেন। তবে মনে রাখবেন, এক বছরের কম বয়সী শিশুকে মধু দেওয়া বিপজ্জনক হতে পারে।

অনেকে এর অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্যের কারণে এটি গলা ব্যথার জন্য ব্যবহার করেন। ২০১৯ সালে অক সমীক্ষা থেকে জানা গিয়েছে, অ্যান্টিবায়োটিকের চেয়ে মধু আরও কার্যকর হতে পারে। এতে মেথিসিলিন প্রতিরোধী স্টাফিলোকক্কাস অরিয়াস রয়েছে। ব্যাকটিরিয়া ধ্বংস করতে অ্যান্টিবায়োটিক হিসাবে মধুর ব্যবহার খুব ভালো। তাই প্রয়োজনে এটি ব্যবহার করতে পারেন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.