শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০২২

পুলওয়ামা হামলার ‘মূলচক্রী’! নয়া পাক সেনাপ্রধানের সম্পর্কে জানুন গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য

আত্রেয়ী সেন

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৪, ২০২২, ০৫:২৬ পিএম | আপডেট: নভেম্বর ২৪, ২০২২, ০৫:৩৪ পিএম

পুলওয়ামা হামলার ‘মূলচক্রী’! নয়া পাক সেনাপ্রধানের সম্পর্কে জানুন গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য
পুলওয়ামা হামলার ‘মূলচক্রী’! নয়া পাক সেনাপ্রধানের সম্পর্কে জানুন গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ ৮ মাসের গুপ্তচর জীবন তাঁর। তার মধ্যেই পুলওয়ামা হামলার মতো জঘন্য হত্যাকাণ্ডকে রূপ দিয়েছিলেন। জম্মু-কাশ্মীরের একাধিক জঙ্গি হামলার নেপথ্যে নায়ক এবং প্রাক্তন পাক প্রধানমন্ত্রীর কট্টর বিরোধী হিসেবেই পরিচিত লেফটেন্যান্ট জেনারেল আসিম মুনির। এবার তাঁকেই সেনাপ্রধান হিসেবে নিয়োগ করেছে পাকিস্তান।

বৃহস্পতিবার তাঁকেই নতুন সেনাপ্রধান হিসেবে তাঁর নাম ঘোষণা করে ইসলামাবাদ। চলতি বছরের ২৯ নভেম্বর সেনাপ্রধানের পদ থেকে অবসর গ্রহণ করবেন জেনারেল কমর জাভেদ বাজওয়া। তাঁর অবসরের এক সপ্তাহ আগেই নতুন সেনাপ্রধান হিসেবে লেফটেন্যান্ট জেনারেল মুনিরের নাম ঘোষণা করল শাহবাজ শরিফ সরকার। এখানেই শেষ নয়, আনুষ্ঠানিকভাবে ওই পদে নিয়োগের জন্য তাঁর নাম ইতিমধ্যেই পাক প্রেসিডেন্টের কাছে পাঠিয়েও দেওয়া হয়েছে। এদিকে, প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের দাবি, লেফটেন্যান্ট জেনারেল মুনির পাকিস্তানের সেনাপ্রধানের দায়িত্বে এলে আবারও রক্তাক্ত হতে পারে উপত্যকা। যা নিঃসন্দেহে নয়া দিল্লির কাছে চিন্তার বিষয় হয়ে উঠবে।

এবার জেনে নেওয়া যাক কে এই লেফটেন্যান্ট জেনারেল মুনির? বর্তমান পাক সেনাপ্রধান জেনারেল বাজওয়ার ঘনিষ্ঠ হিসেবেই পরিচিত এই মুনির। আর সেই কারণেই পরবর্তী পাক সেনাপ্রধান হওয়ার দৌড়ে সবথেকে এগিয়ে ছিলেন তিনিই। নর্দান এরিয়ার ব্রিগেডিয়ার থাকাকালীন জেনারেল বাজওয়ার অধীনেই কাজ করেছেন এই মুনির। সেই সময় এক্স ক্রপস-এর কমান্ডার ছিলেন জেনারেল বাজওয়া। ২০১৭ সালে পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই- তে চলে আসেন তিনি। প্রথমে পাক গুপ্তচর সংস্থার মিলিটারি ইনটেলিজেন্সের দায়িত্ব পান লেফটেন্যান্ট জেনারেল মুনির। পরবর্তী সময়ে পাক গুপ্তচর সংস্থার ডিরেক্টর জেনারেল পদেও উঠে আসেন এই মুনিরই।

২০১৯-সালের ফেব্রুয়ারিতে জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় CRPF কনভয়ে আত্মঘাতী হামলা চালায় পাক মদতপুষ্ট জঙ্গিরা। সেই হামলার স্মৃতি এখনও ভারতীয়দের স্মৃতিতে উজ্জ্বল। ভারতীয় গোয়েন্দাদের দাবি, ওই হামলার মাস্টার মাইন্ড বা মূলচক্রী ছিলেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল মুনির। শুধু তাই নয়, মুনির পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই-এর ডিরেক্টর জেনারেল থাকাকালীন কাশ্মীরে জঙ্গি কার্যকলাপ সবথেকে বেশি বৃদ্ধি পেয়েছিল। কিন্তু পুলওয়ামা হামলার পর তৎকালীন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের অবনতি হয়। ওই সময় এই পাক সেনাকর্তার স্ত্রীর বিরুদ্ধেও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছিল। ফলে তাঁকে সরিয়ে লেফটেন্যান্ট জেনারেল ফয়াজ হামিদকে ওই পদে নিয়ে আসেন ইমরান। মাত্র আট মাস ISI-র ডিরেক্টর জেনারেল পদে ছিলেন তিনি। যা পাক গুপ্তচর সংস্থার ইতিহাস সবচেয়ে কম সময়ের কার্যকাল বলেই জানিয়েছে একাধিক সংবাদমাধ্যম। বলা বাহুল্য, ইমরানের এই সিদ্ধান্তে মোটেই খুশি ছিলেন না লেফটেন্যান্ট জেনারেল মুনির।

এরপর আইএসআই থেকে বেরিয়ে দু’বছর গুজরানওয়ালায় XXX Corps-র কমান্ডার হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন তিনি। ২০২১-এ বদলি হয়ে রাওয়ালপিন্ডির পাক সেনা সদর দফতরে চলে আসেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল মুনির। মাঙ্গলার অফিসার ট্রেনিং অ্যাকাডেমি-র স্নাতক মুনির ফ্রন্টটিয়ার ফোর্স রেজিমেন্টের ২৩ নম্বর ব্যাটেলিয়ন থেকে সৈনিক জীবন শুরু করেছিলেন। আবার এতদিনের কর্মজীবনে Sword of Honour-র মতো সম্মানেও ভূষিত হয়েছেন।