বৃহস্পতিবার, ২৬ মে, ২০২২

যুদ্ধে হারিয়েছেন পা, একগুচ্ছ রঙিন স্বপ্ন নিয়ে হাসপাতালেই প্রেমিককে বিয়ে করলেন ইউক্রেনীয় নার্স

চৈত্রী আদক

প্রকাশিত: মে ৫, ২০২২, ১০:২৪ এএম | আপডেট: মে ৫, ২০২২, ১০:২৪ এএম

যুদ্ধে হারিয়েছেন পা, একগুচ্ছ রঙিন স্বপ্ন নিয়ে হাসপাতালেই প্রেমিককে বিয়ে করলেন ইউক্রেনীয় নার্স
যুদ্ধে হারিয়েছেন পা, একগুচ্ছ রঙিন স্বপ্ন নিয়ে হাসপাতালেই প্রেমিককে বিয়ে করলেন ইউক্রেনীয় নার্স

বংনিউজ২৪×৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ প্রাণ কেড়েছে শত শত মানুষের। ঘরছাড়া কয়েক কোটি সাধারণ মানুষ। যুদ্ধের কবল থেকে প্রাণে বাঁচতে কত মানুষ আশ্রয় নিয়েছে বাঙ্কারে। একের পর এক মিসাইল হানায় তছনছ হয়েছে ইউক্রেন। তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়েছে বহুতলগুলি। ছবির মতো সাজানো শহর নিমেষে পরিণত হয়েছে ধ্বংসস্তূপে। এই ধ্বংসলীলার মাঝেই এমন কিছু ভিডিও ভাইরাল হয়েছে যা দেখে চোখে জল এসেছে নেটিজেনদের।

এবার এমন একটি ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে যা দেখে আপনার মুখেও হাসি ফুটবে। শত সমস্যার মধ্যেও খুঁজে পাবেন বেঁচে থাকার রসদ। রুশ মিসাইল হামলায় দুটি পা হারান এক ইউক্রেনীয় তরুণী। দীর্ঘদিন ধরেই হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলছিল। এখন তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ। তবে সুস্থ হয়েই সবার আগে এক বড় স্বপ্নপূরণ করলেন। হাসপাতালেই বিয়ে করলেন নিজের মনের মানুষকে।

সূত্রের খবর, ওই তরুনীর নাম ওকসানা। তিনি পেশায় একজন নার্স। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ চরম আকার ধারণ করায় সাধারণ মানুষ যখন নিজের প্রাণ বাঁচাতে বাঙ্কারে আশ্রয় নিচ্ছেন অথবা দেশ ছেড়ে চলে যাচ্ছেন সেই সময় নিজের কথা না ভেবে কেবল একভাবে কর্তব্য পালন করে গিয়েছেন ওকসানা। মানুষের সেবায় প্রাণপাত করেছেন তরুণী। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত যুদ্ধের প্রভাব থেকে বাঁচাতে পারেননি নিজেকে।

জানা যায়, গত ২৭ মার্চ প্রেমিক ভিক্টরের সঙ্গে ফিরছিলেন ওকসানা। সেই সময় লাইসিচানস্ক শহরে রুশ মিসাইল হামলা হয়। বাদ পড়ে তাঁর দুটি পা। এমনকি তাঁর হাতের দুটি আঙুলও উড়ে যায় বলে খবর। তরুণীকে ভর্তি করা হয় হাসপাতালে। চলে চার-চারটি জটিল অস্ত্রোপ্রচার। অবশেষে প্রাণে বাঁচেন তিনি। দুটি পা হারিয়ে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছিলেন। কিন্তু প্রথম থেকে শেষ অবধি পাশে থেকেছেন ওকসানার প্রেমিক। এরপরই প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন ভিক্টর।

হাসপাতালেই বসে তাঁদের বিবাহ বাসর। সাদা পোশাকে রাজকীয় ভাবে সেজে ওঠেন ওকসানা। একগুচ্ছ রঙিন স্বপ্ন নিয়ে প্রেমিকের সঙ্গে নতুন পথ চলা শুরু করেন। যুদ্ধের ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা ভুলে নতুন করে জীবনযুদ্ধে জয়ী হওয়ার অঙ্গীকার নেন নবদম্পতি। ইউক্রেনের তথ্য ও সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় লভিভের (Lviv) হাসপাতালে আয়োজিত বিয়ের অনুষ্ঠানের ভিডিওটি প্রথম ট্যুইট করেন। এই মর্মস্পর্শী ভিডিও মন কেড়ে নেয় নেটিজেনদের।