বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই, ২০২২

চমকের নাম দ্রৌপদী মুর্মু! মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার আগে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও নেতারা কী বলছেন?

আত্রেয়ী সেন

প্রকাশিত: জুন ২৩, ২০২২, ১১:১০ পিএম | আপডেট: জুন ২৩, ২০২২, ১১:২১ পিএম

চমকের নাম দ্রৌপদী মুর্মু! মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার আগে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও নেতারা কী বলছেন?
চমকের নাম দ্রৌপদী মুর্মু! মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার আগে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও নেতারা কী বলছেন?

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ এবারের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বড় চমকের নাম দ্রৌপদী মুর্মু। আগামী ১৮ জুলাই রাষ্ট্রপতি নির্বাচন। ইতিমধ্যেই বিরোধী দলগুলির রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন যশবন্ত সিনহা। এরপরই ক্ষমতাসীন এনডিএ জোটের প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হয়। মঙ্গলবারই রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের জন্য ভারতীয় জনতা পার্টির নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হন ঝাড়খণ্ডের প্রাক্তন রাজ্যপাল দ্রৌপদী মুর্মু। নাম ঘোষণার পর তাঁকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী- সহ অনেকেই।

তাঁর নাম রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হিসেবে ঘোষণার পর আজই সকালে দিল্লিতে আসেন দ্রৌপদী মুর্মু। রাজধানীতে পৌঁছানোর পর একের পর এক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এবং বিজেপি নেতার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন তিনি। সকালে দিল্লি পৌঁছেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং-এর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন দ্রৌপদী মুর্মু। দুপুরের দিকে দেখা করেন উপরাষ্ট্রপতি ভেঙ্কাইয়া নাইডুর সঙ্গে। এরপর সন্ধের সময় সাক্ষাৎ করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি জেপি নাড্ডার সঙ্গে। প্রত্যেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এবং নেতারা তাঁকে টুইট করে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। 

আদিবাসী নেত্রী থেকে ঝাড়খণ্ডের প্রাক্তন রাজ্যপাল দ্রৌপদী মুর্মু। তিনি জানিয়েছেন, টেলিভিশনের মাধ্যমেই প্রথমে জানতে পারেন নিজের নাম রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হিসেবে ঘোষিত হওয়ার কথা। এই সিদ্ধান্তে তিনি আনন্দিত বলেই জানিয়েছেন তিনি। তাঁর কথায়, ‘আমি যেমন বিস্মিত, তেমনই আনন্দিত। প্রত্যন্ত ময়ূরভঞ্জ জেলার একজন উপজাতীয় মহিলা হিসাবে আমি দেশের শীর্ষ পদের প্রার্থী হওয়ার কথা ভাবিওনি।’ এখানেই শেষ নয়, তিনি আরও জানিয়েছেন যে, রাষ্ট্রপতি পদের জন্য একজন উপজাতীয় মহিলাকে মনোনীত করার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিজেপি টা এককথায় প্রধানমন্ত্রীর ‘সবকা সাথ, সবকা বিকাশ, সবকা বিশ্বাস’ স্লোগানেরই প্রতিফলন। 

এবার দেখে নেওয়া যাক টুইটে কে কী বলেছেন। প্রধানমন্ত্রী টুইট করে লেখেন, ‘শ্রীমতী দ্রৌপদী মুর্মুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করলাম। সমাজের বিভিন্ন শ্রেণীর মানুষ তাঁর রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। সমাজের একবারে তৃণমূলস্তরের সমস্যা বুঝতে পারা এবং ভারতের উন্নয়নের জন্য তাঁর দুরদৃষ্টি অসাধারণ।’

কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং লেখেন, ‘আজ ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্সের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী শ্রীমতি দ্রৌপদী মুর্মুজির সাথে দেখা করে তাকে শুভেচ্ছা জানালাম। সমাজের দুর্বল অংশের ক্ষমতায়নের জন্য তিনি তাঁর জীবন উৎসর্গ করেছেন। দেশ ও সমাজকে আরও শক্তিশালী করতে তিনি কার্যকর ভূমিকা রাখবেন বলে আমি নিশ্চিত।’

অন্যদিকে, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ টুইট করে লেখেন, ‘এনডিএ-এর রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী শ্রীমতি দ্রৌপদী মুর্মুজির সঙ্গে দেখা করে শুভেচ্ছা জানাই। তাঁর নাম ঘোষণায় আদিবাসী সমাজ খুবই গর্বিত। আমি নিশ্চিত যে তাঁর প্রশাসনিক দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা পুরো দেশের জন্য লাভজনক হবে।’ 

আসন্ন রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে তিনি রাজ্যের ক্ষমতাসীন বিজেডির সমর্থন পাবেন কি? এই প্রশ্নের উত্তরে দ্রৌপদী মুর্মু জানিয়েছেন, ‘আমি ওড়িশা বিধানসভার সমস্ত সদস্য এবং সাংসদদের সমর্থন পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী।’  দ্রৌপদী আরও জানিয়েছেন যে, ‘আমি মাটির মেয়ে। একজন ওড়িয়া হিসাবে আমাকে সমর্থন করার জন্য সকল সদস্যকে অনুরোধ করার অধিকার আমার আছে।’

১৯৫৮ সালের ২০ জুন ওড়িশার ময়ূরভঞ্জ জেলার বাইদাপোসি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবার নাম বিরাঞ্চি নারায়ণ টুডু। দৌপদী মুর্মুর কর্মজীবন শুরু হয়েছিল একজন শিক্ষিকা হিসেবে। দ্রৌপদী মুর্মু ওডিশার প্রাক্তন মন্ত্রী ছিলেন এবং ২০০০ সাল থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত রায়রাংপুর বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক ছিলেন। 

২০০০ সাল থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত বিজেপি এবং বিজেডি’র জোট সরকার থাকাকালীন তিনি মন্ত্রীত্ব সামলেছেন। তাঁর দায়িত্বে ছিল পরিবহণ, পশুপালন এবং মৎস্য দফতরের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিভাগ। দৌপদী মুর্মু ঝাড়খণ্ডের নবম রাজ্যপাল হিসেবে নিযুক্ত হয়েছিলেন। তিনিই ঝাড়খণ্ডের প্রথম রাজ্যপাল, যিনি রাজ্যপালের পাঁচ বছরের কার্যকালের মেয়াদ সম্পূর্ণ করতে সক্ষম হয়েছিলেন। 

উল্লেখ্য, দৌপদী মুর্মু যদি রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে জয়ী হন তাহলে সেক্ষেত্রে তিনিই হবেন দেশের প্রথম আদিবাসী রাষ্ট্রপতি। এদিকে, হিসেব বলছে, ১৮ টি  বিরোধী দলের সমর্থিত প্রার্থী যশবন্ত সিনহার থেকে রাষ্ট্রপতি হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন দৌপদী মুর্মু।