রবিবার, ০২ অক্টোবর, ২০২২

‘যিনিই কংগ্রেস প্রধান হবেন…’, সভাপতি নির্বাচনের আগে গেহলটকে ইঙ্গিতপূর্ণ বার্তা রাহুল গান্ধীর

আত্রেয়ী সেন

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২২, ২০২২, ০৪:৩৪ পিএম | আপডেট: সেপ্টেম্বর ২২, ২০২২, ০৪:৪৩ পিএম

‘যিনিই কংগ্রেস প্রধান হবেন…’, সভাপতি নির্বাচনের আগে গেহলটকে ইঙ্গিতপূর্ণ বার্তা রাহুল গান্ধীর
‘যিনিই কংগ্রেস প্রধান হবেন…’, সভাপতি নির্বাচনের আগে গেহলটকে ইঙ্গিতপূর্ণ বার্তা রাহুল গান্ধীর

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ এখনও পর্যন্ত কংগ্রেসের অন্দরের যা পরিস্থিতি, তাতে এবারে সভাপতি পদের জন্য জোর লড়াই হতে চলেছে শশী থারুর এবং অশোক গেহলটের মধ্যে। আগামী ১৭ অক্টোবর কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচন। আর শনিবার শুরু মনোনয়ন পেশ। আবার এর মধ্যেই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে শোনা যাচ্ছে দিগ্বিজয় সিং, মণীশ তিওয়ারি প্রমুখের নামও।

এদিকে এই পরিস্থিতিতে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী তথা বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা অশোক গেহলটের সরাসরি নাম না নিয়ে, তাঁকে স্পষ্ট বার্তা দিলেন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। তাঁর বার্তা-দলের ‘এক ব্যক্তি এক পদ’ মেনে চলতে হবে। অর্থাৎ একই সঙ্গে কংগ্রেস সভাপতি এবং রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী- এই দ্বৈত ভুমিকায় থাকতে পারবেন না গেহলট। বৃহস্পতিবার কেরলে এক সাংবাদিক বৈঠক করে রাহুল গান্ধী বলেন, ‘আমরা উদয়পুরে একটি প্রতিশ্রুতি দিয়েছি, আমি আশা করি তা বজায় থাকবে।’

উল্লেখ্য কংগ্রেসের সভাপতি পদের নির্বাচনে অশোক গেহলটের প্রার্থী হওয়া একপ্রকার পাকাই। এমনকি বুধবার সন্ধ্যায় তিনি সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে দেখাও করেন এ বিষয়ে। গান্ধী পরিবার এবং তাঁদের ঘনিষ্ঠরা চাইছেন, রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীকে প্রার্থী করতে। তবে, অশোক গেহলট নিজে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রিত্বের রাজপাট ছেড়ে কংগ্রেসের সভাপতি হতে রাজি নন খুব একটা। আবার সোনিয়া গান্ধীর যদি নির্দেশ আসে, সেটা উপেক্ষা করাটাও সহজ হবে না গেহলটের জন্য। এনিয়ে এর আগে তাঁকে প্রশ্ন করা হলে, তিনি জানিয়েছিলেন যে, তিনি কোথাও যাচ্ছেন না।

যদিও কংগ্রেসের উদয়পুর চিন্তন শিবিরে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল, দলে ও প্রশাসনে একটি করে পদেই থাকবেন কংগ্রেস নেতারা। রাহুল গান্ধীর এদিনের মন্তব্য, বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতার আগের অবস্থানের জন্য বড় ধাক্কা বলেই মনে করছেন এই মুহূর্তে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। এদিকে, অশোক গেহলট ছাড়া, এই পদের দৌড়ে প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে শোনা যাচ্ছে শশী থারুর, দিগ্বিজয় সিং, মণীশ তিওয়ারি প্রমুখের নাম।

উল্লেখ্য, এখনও পর্যন্ত যা খবর, তাতে গান্ধী পরিবারের কোনও সদস্য এবার সভাপতি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন না। যদিও, শেষ মুহূর্তে রাহুল গান্ধীকে সভাপতি পদে চেয়ে সাতটি প্রদেশ কমিটি প্রস্তাব গ্রহণ করেছে ইতিমধ্যেই। তবে, তাতেও রাহুলের মত পরিবর্তনের কোনও ইঙ্গিত মেলেনি। কাজেই এটা কার্যত স্পষ্ট যে, সভাপতি পদের জন্য লড়াই হতে চলেছে অ-গান্ধীদের মধ্যেই।

অন্যদিকে, ‘এক ব্যক্তি এক পদ’-এর প্রতিশ্রুতি রক্ষাই শুধু নয়, এর পাশাপাশি ভাবি কংগ্রেস সভাপতির জন্য এদিন আরও কিছু বার্তা দিয়েছেন প্রাক্তন সভাপতি রাহুল গান্ধী। তিনি জানিয়েছেন, কংগ্রেস সভাপতির পদকে একটি আদর্শিক পদ হিসাবে দেখতে হবে। এদিন তিনি বলেন, ‘যিনিই কংগ্রেস প্রধান হবেন, তাঁকে মনে রাখতে হবে যে তিনি একটি ধারণার, একটি বিশ্বাসের, ভারতের দৃষ্টিভঙ্গির প্রতিনিধিত্ব করছেন।’

রাহুল গান্ধীর আরও সংযোজন, ‘আমরা এমন একটি যন্ত্রের বিরুদ্ধে লড়াই করছি যেটি এই দেশের প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোকে দখল করে নিয়েছে। তাদের কাছে মানুষকে কেনার জন্য সীমাহীন অর্থ এবং চাপ ও হুমকি দেওয়ার ক্ষমতা রয়েছে। এর পরিণতি আপনারা গোয়ায় দেখেছেন।’ আবার ‘ভারত জোড়ো যাত্রা’ সম্পর্কে এদিন তিনি বলেছেন, এই যাত্রার উদ্দেশ্য হল ভারতবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার প্রয়োজন বোঝানো। এছাড়াও পপুলার ফ্রন্ট অব ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধে অভিযানের প্রসঙ্গে রাহুল গান্ধী বলেছেন, ‘উৎস নির্বিশেষে সকল ধরনের সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে লড়তে হবে। সাম্প্রদায়িকতার প্রতি শূন্য সহনশীলতা থাকা উচিত এবং এর বিরুদ্ধে লড়াই করা উচিত।’