রবিবার, ০২ অক্টোবর, ২০২২

ভয়ঙ্কর ঘটনা! গণধর্ষণের পর, রক্তপাত নিয়েই নগ্ন অবস্থায় ২ কিমি হেঁটে বাড়ি ফিরলেন কিশোরী

আত্রেয়ী সেন

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২২, ২০২২, ০৩:৪৮ পিএম | আপডেট: সেপ্টেম্বর ২২, ২০২২, ০৪:০৪ পিএম

ভয়ঙ্কর ঘটনা! গণধর্ষণের পর, রক্তপাত নিয়েই নগ্ন অবস্থায় ২ কিমি হেঁটে বাড়ি ফিরলেন কিশোরী
ভয়ঙ্কর ঘটনা! গণধর্ষণের পর, রক্তপাত নিয়েই নগ্ন অবস্থায় ২ কিমি হেঁটে বাড়ি ফিরলেন কিশোরী / প্রতীকী ছবি

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ সময়সীমা খুব কম, মাত্র ৩০ সেকেন্ডের ভিডিও। কিন্তু ওই ৩০ সেকেন্ডই শিউরে ওঠার জন্য যথেষ্ট। এককথায় হাড়হিম করা ভিডিও। আবারও খবরের শিরোনামে যোগীরাজ্য। উত্তরপ্রদেশে একের পর এক ধর্ষণের ঘটনা ঘটেই চলেছে। সম্প্রতি আরও একটি গণধর্ষণের ঘটনা ঘটে। সেই গণধর্ষণের ঘটনার সঙ্গে সম্পর্কিত একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, নির্যাতিতা কিশোরী নগ্ন হেঁটে যাচ্ছেন রাস্তা দিয়ে। গণধর্ষণের জেরে একনাগাড়ে রক্তপাত হয়ে চলেছে তাঁর। সেই অবস্থাতেই প্রায় ২ কিলোমিটার রাস্তা হাঁটেন ওই কিশোরী। তাও নগ্ন অবস্থায়। এমনই ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটেছে যোগীরাজ্য উত্তরপ্রদেশে। ইতিমধ্যেই ভাইরাল হয়েছে সেই ভিডিও।

ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের মোরাদাবাদে ঘটনাটি ঘটেছে বলে জানা যাচ্ছে। অভিযোগ, ১৫ বছরের ওই কিশোরীকে গণধর্ষণ করে ৫ ব্যক্তি। গণধর্ষণের পর তাঁকে রাস্তায় নগ্ন হাঁটতে একপ্রকার বাধ্য করে ওই ৫জন। ঘটনাটি দিন পনেরো আগের। তবে, ভিডিও ভাইরাল হতেই এই পাশবিক, ন্যক্কারজনক এই ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসে। এই ভয়ঙ্কর ভিডিও দেখে শিউরে উঠছে সবাই।

অভিযোগ, গাড়ির মধ্যে ৫ জন মিলে ওই কিশোরীকে গণধর্ষণ করে। এখানেই শেষ নয়, তাঁর উপর পাশবিক নির্যাতনের পর কিশোরীর জামাকাপড় পর্যন্ত নিয়ে চলে যায় দুর্বৃত্তরা। সম্পূর্ণ বিবস্ত্র অবস্থায় তাঁকে গাড়ি থেকে রাস্তায় ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া হয়। কার্যত রাস্তায় নগ্ন অবস্থায় হাঁটতে বাধ্য করা হয়। ঘটনার আকস্মিকতায় হতভম্ব হয়ে যান ওই কিশোরী। জানা গিয়েছে, প্রচন্ড শক থেকে ট্রমাটাইজড হয়ে যান। এরপর ওই অসহায় কিশোরী বিবস্ত্র অবস্থাতেই রাস্তা দিয়ে হাঁটতে শুরু করেন।

এদিকে, ওই রক্তাক্ত, অসহায় অবস্থায় কিশোরীকে দেখেও সাহায্যের জন্য পথচলতি কোনও মানুষ এগিয়ে আসেননি। বরং উল্টে এনিয়ে অনেকেই মজা করতে শুরু করেন। কেউ কেউ আবার তার মধ্যেই ওই কিশোরীর ভিডিও করেন। এরপর সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোডও করে দেন।

ঘটনার পর কোনও মতে বাড়ি ফিরে ওই কিশোরী পুরো ঘটনা খুলে বলেন। এরপরই পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ জানানোর জন্য গেলেও, সেখানেও পুলিশ তাঁদের সহযোগিতা করে বলেই অভিযোগ। এমনকি পুলিশ প্রথমে অভিযোগ নিতেই চায়নি। পরে জেলা পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপে অভিযোগ দায়ের করা হয়।

এই ঘটনায় ৭ সেপ্টেম্বর এফআইআর দায়ের হয়। তদন্তে নেমে পুলিস ১৫ সেপ্টেম্বর এক অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে। নির্যাতিতার পরিবারের অভিযোগ, গ্রেফতারির পর থেকেই ওই কিশোরী-সহ তাঁদের সবাইকে ক্রমাগত খুনের হুমকি দিয়ে চলেছে ধৃতের পরিবারের লোকজনেরা। ফলে স্বাভাবিকভাবেই চরম আতঙ্কের মধ্য়ে দিন কাটাচ্ছেন তাঁরা। ওদিকে মোরাদাবাদ পুলিশ জানিয়েছে, ওই কিশোরী পাশের গ্রামে মেলায় ঘুরতে গিয়েছিল। মেলা থেকেই তাঁকে অপহরণ করে ৫ জন। এরপরই তাঁকে গণধর্ষণ করা হয়।