বৃহস্পতিবার, ২৬ মে, ২০২২

পরনে বিকিনি, বাবার সামনেই খোলামেলা পোশাকে কেক কাটলেন ইরা! জন্মদিনে ট্রোলের মুখে আমির-কন্যা

চৈত্রী আদক

প্রকাশিত: মে ১১, ২০২২, ০৭:২০ এএম | আপডেট: মে ১১, ২০২২, ০৭:২০ এএম

পরনে বিকিনি, বাবার সামনেই খোলামেলা পোশাকে কেক কাটলেন ইরা! জন্মদিনে ট্রোলের মুখে আমির-কন্যা
পরনে বিকিনি, বাবার সামনেই খোলামেলা পোশাকে কেক কাটলেন ইরা! জন্মদিনে ট্রোলের মুখে আমির-কন্যা

বংনিউজ২৪×৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ রবিবারই আমির-কন্যা ইরা খানের ২৫ তম জন্মবার্ষিকী ছিল। এই উপলক্ষে খান পরিবারে আয়োজিত হয়েছিল পুল পার্টি। পার্টির মাঝেই জন্মদিনের কেক কাটতে দেখা যায় ইরাকে। তাঁকে ঘিরে খুশির জোয়ারে গা ভাসিয়েছিলেন বাবা আমির খান, মা রিনা দত্ত এবং ভাই আজাদ রাও। আমন্ত্রিত ছিলেন আমির খানের দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রী কিরণ রাও এবং ইরার দীর্ঘদিনের প্রেমিক নুপুর শিখারে। সব মিলিয়ে জন্মদিনের অনুষ্ঠান ঘিরে আনন্দ উত্তেজনা যখন তুঙ্গে ঠিক তখনই নীতি পুলিশের নজরে পড়লেন খোদ ইরা খান।

পুল পার্টিতে স্বাভাবিকভাবে প্রায় সবাইকেই সুইমিং কস্টিউমে দেখা গিয়েছিল। কিন্তু চরম ট্রোলিংয়ের শিকার হলেন তারকা-কন্যা। কী তাঁর অপরাধ? ২০২২ সালে দাঁড়িয়ে তাঁর ‘অপরাধ’ ছিল বাবার সামনেই বিকিনি পরে জন্মদিনের কেক কাটা। শুভ জন্মতিথিতে খোলামেলা পোশাক নির্বাচন করেই নেটিজেনদের একরাশ কটাক্ষের মুখোমুখি হতে হল ইরাকে। যদিও অনুষ্ঠানে আমির এবং আজাদকেও সাঁতারের পোশাকেই দেখা গিয়েছিল। কিন্তু তাঁদের নিয়ে কেউই কোনও কাদা ছোঁড়াছুঁড়ি করেনি।

এদিন সুইমিংপুলে বাবার দ্বিতীয় পক্ষের প্রাক্তন স্ত্রী কিরণ রাও-এর সঙ্গে আলিঙ্গন করে ছবি তোলেন ইরা খান। অন্যদিকে প্রেমিককেও আলিঙ্গনে ভরিয়ে দিতে দেখা যায় ইরাকে। ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করেন সেই সকল মুহূর্তের ছবি। যদিও এসব কিছুই নেটিজেনদের কটাক্ষের বিষয়বস্তু নয়। মাল্টি কালারের বিকিনি পরিহিতা ইরার আমিরের সামনে কেক কাটাকে কেন্দ্র করেই যাবতীয় সমালোচনার সূত্রপাত।

বক্ষবিভাজিকা উন্মুক্ত করে খোলামেলা পোশাকে কিভাবে বাবার সামনে কেউ কেক কাটতে পারে? এই প্রশ্ন তুলেছেন নেটনাগরিকদের একাংশ। তাদের চোখে ইরা খান ‘নির্লজ্জ’, ‘অসভ্য’। এমনকি আমিরের অভিভাবকত্ব নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন নিন্দুকেরা। বলাবাহুল্য, সমাজের তথাকথিত বস্তাপচা‌ ধারণার বশবর্তী হয়ে বাবার পাশে মেয়ের কিভাবে দাঁড়ানো উচিৎ সেই প্রসঙ্গ তুলেও সমালোচনায় মুখর হয়েছেন নেটিজেনরা।

তবে সমালোচনার পাশাপাশি এমন অনেকেই আছেন যারা ইরা খানের সমর্থনে আওয়াজ তুলেছেন। এই বিষয়ে কটাক্ষকারীদের বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়ায় সুর চড়িয়েছেন গায়িকা সোনা মহাপাত্র। ট্যুইটে তিনি লিখেছেন, একজন মুক্ত, চিন্তাশীল ও প্রাপ্তবয়স্ক নারী হিসেবে ইরার যেটা পছন্দ সেটাই করছেন। এই প্রসঙ্গে ইরার বাবা অর্থাৎ আমির খানের অন্তত সমালোচকদের কোনও অনুমোদনের প্রয়োজন নেই। সোনার বক্তব্যকে অনেকেই সমর্থন করেছেন। কেউ লিখেছেন, প্রত্যেকেরই নিজের মতো করে বাঁচার অধিকার রয়েছে। কারুর আবার বক্তব্য, সোনা যেভাবে সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর বক্তব্য অকপটে তুলে ধরেছেন তা সত্যিই প্রশংসনীয়। তবে যে যাই বলুক, তুচ্ছ সমালোচনা কানে তোলার সময় নেই আমির বা ইরার। তাঁরা যে যার মত খোশমেজাজেই রয়েছেন।