মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই, ২০২২

এক ধাক্কাতেই মালাবদল-সিঁদুরদান, সম্পন্ন বিয়ে! নয়া প্রোমো প্রকাশেই ট্রোলের ফাঁদে ‘আয় তবে সহচরী’

চৈত্রী আদক

প্রকাশিত: মে ২০, ২০২২, ০৭:৫৩ পিএম | আপডেট: মে ২০, ২০২২, ০৭:৫৮ পিএম

এক ধাক্কাতেই মালাবদল-সিঁদুরদান, সম্পন্ন বিয়ে! নয়া প্রোমো প্রকাশেই ট্রোলের ফাঁদে ‘আয় তবে সহচরী’
এক ধাক্কাতেই মালাবদল-সিঁদুরদান, সম্পন্ন বিয়ে! নয়া প্রোমো প্রকাশেই ট্রোলের ফাঁদে ‘আয় তবে সহচরী’

বংনিউজ২৪×৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ উড়ন্ত মালা, উড়ন্ত সিঁদুর, আর তাতেই পাত্র-পাত্রীর বিবাহ সুসম্পন্ন! বাংলা ধারাবাহিকের গতে বাঁধা একই গল্প দেখে দর্শক একেবারে ক্লান্ত। বাস্তবতার চিহ্নমাত্র নেই, বরং এমন দৃশ্য দেখে হাসি একেবারেই থামানো যায় না। অথচ এগুলো কোনও কমেডি দৃশ্যও নয়। তবে এখনও বেশ কিছু দর্শক রয়েছেন যারা বিনোদনের রসদ জোগাতে সিরিয়ালে এই ধরনের নাটকীয় দৃশ্য দেখতে বেশ পছন্দই করেন।

এই প্রকার কিছু দর্শককে আকর্ষণ করতে এবং টিআরপি বাড়াতে  এমন অবাস্তব গল্প বেছে নেন ধারাবাহিকের নির্মাতারা। ব্যাপারটা অনেকটা গল্পের গরু গাছে ওঠার মতো। এবার এই তালিকায় নাম লেখাল বাংলার আরও এক সিরিয়াল, ‘আয় তবে সহচরী’। ইতিমধ্যেই সিরিয়ালটির একটি প্রোমো প্রকাশ্যে এসেছে। যা দেখে হাসি থামাতে পারছেন না নেটিজেনরা। কী এমন আছে প্রোমোতে?

দেখা যাচ্ছে, পাত্রীর যার সঙ্গে বিয়ে হওয়ার কথা তাঁকে এক ধাক্কাতে সরিয়ে দিচ্ছেন অপর এক ব্যক্তি। পরমুহূর্তে তিনিই কনের গলায় পরিয়ে দিচ্ছেন মালা। এখানেই শেষ নয়, সিঁদুর পরানোর মধ্যেও রয়েছে চরম নাটকীয়তা। এমন প্রোমো দেখেই সোশ্যাল মিডিয়ায় বয়ে গিয়েছে হাসির জোয়ার। মিমাররাও তাঁদের মিম মেটিরিয়াল হিসেবে বেছে নিয়েছেন ‘আয় তবে সহচরী’ ধারাবাহিকের এই দৃশ্যটিকে।

বাংলা ধারাবাহিক প্রেমীদের মধ্যে ‘আয় তবে সহচরী’ কিন্তু বেশ জনপ্রিয়। সাধারণ গৃহবধু থেকে সহচরীর নিজেকে জীবনে প্রমাণ করার গল্প মন ছুঁয়েছে তাঁদের। সেসব তো ঠিকই ছিল। গল্পের মোড় তখনই ঘোরে যখন প্রবেশ করেন এক খলনায়িকা। তাঁর অনস্ক্রীন নাম দেবিনা। সমরেশকে নিয়েই দেবিনা ও সহচরীর মধ্যে যাবতীয় টানাটানি। নিজেকে অন্তঃসত্ত্বা বলে দাবি করে সমরেশকে বিয়ে করতে উঠেপড়ে লেগেছেন দেবিনা।

অন্যদিকে দেবিনার ষড়যন্ত্র ফাঁস করে দেয় সহচরীর পুত্রবধূ বরফি। সত্যিটা সামনে আসতেই তাঁকে বিয়ে করতে বেঁকে বসেন সমরেশ। কিন্তু দেবিনার হাত থেকে তাঁর এত সহজে নিস্তার নেই। অগত্যা তাঁদের বিয়েতেই বসে এই আসর। বিয়ের আসর তো নয় যেন যাত্রাপালা! সমরেশকে ধাক্কা দিতেই দেবিনার হাতে থাকা মালা সোজা যায় বুবাইয়ের গলায়। এরপর পুরোহিতের থালা থেকে সিঁদুর নিয়ে দেবিনার সিঁথি রাঙ্গিয়ে দেন বুবাই। এতেই সুসম্পন্ন বিবাহ! এবার আপনিই বলুন, এমন দৃশ্য দেখে কি না হেসে থাকা যায়?

এখন চারিদিকে যা মিমের রমরমা তাতে সামান্য পান থেকে চুন খসলেই মুশকিল। আর এমন হাস্যকর দৃশ্য দেখে মিমাররা মিম বানাবেন না এমনটা কি কখনও হয়? অনেকে আবার আজকালকার দিনের ধারাবাহিকের চিত্রনাট্য দেখে হতাশা প্রকাশ করেছেন। তাঁরা প্রশ্ন তুলেছেন, পুরনো দিনের গল্পের প্লট, সম্পর্কের সমীকরণ, বন্ধুত্ব, আবেগ সেসব এখন কোথায়? প্রতিযোগিতার দৌড়ে একগাদা গাঁজাখুরি কনটেন্টের মাঝে ভালো কনটেন্ট বোধহয় সত্যিই হারিয়ে গিয়েছে।